বিশ্ব ইজতেমা'য় আগত মুসুল্লিদের দেওয়া হচ্ছে বিনামূল্যে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

ছবি : সংগৃহীত

টঙ্গীর তুরাগতীরে শুরু হয়েছে ৫৭ তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথমপর্ব। ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের স্বাস্থ্য সেবা ও চিকিৎসা প্রদান করতে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান কাজ করছে। 

ইজতেমায় আগত ধর্মপ্রাণ মুসলিমদের ফ্রি চিকিৎসা সেবা দেয়ার লক্ষ্যে বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা কাউন্সিলসের আয়োজনে বিনামূল্যে হোমিও চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম উদ্বোধন করেন কাউন্সিলের নির্বাহী পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. দিলীপ কুমার রায়। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলের রেজিস্ট্রার ডা. মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, ঢাকা বিভাগীয় সদস্য ডা. কায়েম উদ্দীন, বিশ্ব ইজতেমা চিকিৎসা ক্যাম্প পরিচালনা কমিটি সভাপতি ডা.মোবাশ্বের আলী খাদেম, হোমিওপ্যাথিক বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক শিক্ষার্থী ও চিকিৎসক বৃন্দ।

উল্লেখ্য, পাকিস্তান থেকে আসা মাওলানা আহমদ বাটলার আমবয়ানের মধ্য দিয়ে শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) ফজরের নামাজের পর শুরু হয়েছে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। আগামী রবিবার আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে প্রথম পর্বের ইজতেমা।

ছুটির দিনে বৃহৎ জামাতে অংশ ও জুমার নামাজে যোগ দিতে সকাল থেকে বিভিন্ন এলাকার মানুষ দলে দলে ইজতেমা ময়দানের দিকে ছুটছেন। কেউ বাস, কেউ মোটরসাইকেল আবার কেউ–বা পায়ে হেঁটে রাজধানী ঢাকা ও এর আশপাশের বিভিন্ন এলাকা থেকে যাচ্ছেন ইজতেমা মাঠের দিকে।

ইজতেমা মাঠের মুরব্বি ইঞ্জিনিয়ার আব্দুর নূর জাহান বলেন, তাবলিগ জামাতের উদ্যোগে প্রতিবছর বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। ইজতেমা ময়দানে সব কাজ করা হচ্ছে পরামর্শের ভিত্তিতে। আল্লাহর অশেষ রহমতে সভাপতিহীন বিশ্ব ইজতেমার এত বড় আয়োজন প্রতিবছরই অত্যন্ত সুশৃঙ্খলভাবে সম্পন্ন করা হয়। ময়দানে জেলাওয়ারি মুসল্লিদের অবস্থান, রান্নার স্থান, টয়লেট, অজু ও গোসলখানা সবই সুনির্দিষ্ট করা থাকে।

প্রথম পর্বের ইজতেমার মি‌ডিয়া সমন্বয়কারী জহির ইবনে মুস‌লিম জানান, শুক্রবার ফজর নামাজের পর বয়ান করেন- মাওলানা আহম্মেদ বাটলার, সকাল ১০টায় তা‌লিম করবেন মাওলানা জিয়াউল হক, জুমার নামাজ পড়াবেন মাওলানা জোবায়ের। জুমার নামাজের পর বয়ান করবেন জর্ডনের খ‌তিব ওমর, আছরের পর মাওলানা জোবায়ের ও মাগ‌রিবের পর মাওলানা আহম্মেদ লাট বয়ান করবেন।

তাবলিগ জামাতের দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধের কারণে এবারও বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে আলাদাভাবে। প্রথম পর্বের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বাংলাদেশের মাওলানা জুবায়েরের অনুসারীরা। ৪ ফেব্রুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে এ পর্ব। দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা হবে ৯ থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি। এ পর্বের নেতৃত্ব দেবেন ভারতের মাওলানা সাদ কান্ধলভীর অনুসারীরা।

গাজীপুর মেট্টোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. মাহবুব আলম বলেন, বিশ্ব ইজতেমা ঘিরে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ইজতেমায় গাজীপুর মেট্টোপলিটন পুলিশের ছয় হাজার সদস্যের পাশাপাশি র‌্যাব, ঢাকা মেট্টোপলিটন পুলিশ এবং পোশাকে ও সাদা পোশাকে গোয়েন্দা বাহিনীর পর্যাপ্ত সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন।

Next Post Previous Post