অতিরিক্ত মুলা খেলে কী হয়?

শীতের সময়ে অনেক ধরনের সবজির দেখা মেলে। স্বাদে-গুণে অনন্য সেসব সবজি এসময় প্রায় সবার বাড়িতেই রান্না হয়। তার মধ্যে পরিচিত একটি সবজি হলো মুলা। কেউ কেউ মুলা খেতে খুব একটা পছন্দ করেন না, কারও কারও কাছে আবার এটি অনেক পছন্দের সবজি। মুলার অনেক উপকারিতাও রয়েছে। তবে অতিরিক্ত মুলা খেলে কিছু সমস্যা দেখা দিতে পারে। চলুন জেনে নেওয়া যাক অতিরিক্ত মুলা খেলে কী হয়-

হজমের সমস্যা

যাদের হজমের সমস্যা রয়েছে তারা মুলা কম খেলেই ভালো। কারণ অতিরিক্ত মুলা খাওয়ার ফলে হজমের সমস্যা দেখা দিতে পারে। গ্যাস, বদহজম, বমির মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে অতিরিক্ত মুলা খাওয়ার কারণে। তাই পুষ্টিকর এই সবজি খাওয়ার আগে পরিমাণ বুঝে খান। এতে হজমের সমস্যা এড়িয়ে সুস্থ থাকা সহজ হবে।

থাইরয়েডের সমস্যা

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অতিরিক্ত মুলা খাওয়ার কারণে বাড়তে পারে থাইরয়েডের মতো সমস্যা। যে কারণে থাইরয়েডের রোগীদের অতিরিক্ত মুলা খাওয়া এড়িয়ে চলতে হবে। সেইসঙ্গে অন্যান্য খাবারও খেতে হবে বুঝেশুনে। সব খাবার পরিমাণমতো খেলে সুস্থ থাকা সহজ হবে। এতে থাইরয়েড বেড়ে যাওয়ার ভয় কমবে অনেকটাই।

ডায়াবেটিস

যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে তাদের খাবারের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকা জরুরি। কারণ অনেক খাবার আছে যেগুলো ব্লাড সুগারের পরিমাণ বাড়িয়ে দিতে পারে। মুলা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে যদি তা অতিরিক্ত খাওয়া হয়। তাই ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিরা খুব বেশি মুলা না খাওয়াই ভালো।

কিডনিতে পাথর

বর্তমানে কিডনিতে পাথর হওয়ার সমস্যায় ভুগছেন অনেকে। এর পেছনে কারণ হিসেবে থাকতে পারে আপনার খাদ্যাভ্যাস। অর্থাৎ প্রতিদিন আপনি যেসব খাবার খান সেগুলো প্রভাব ফেলে আপনার শরীরে। তার মধ্যে এমন খাবার থাকতে পারে যা কিডনির জন্য ক্ষতিকর। যেমন মুলা বেশি খেলেও কিডনিতে পাথর হওয়ার মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই খুব বেশি মুলা খাওয়া এড়িয়ে চলতে হবে।

লো ব্লাড প্রেসার

যাদের লো ব্লাড প্রেসারের সমস্যা আছে তারা অতিরিক্ত মুলা খাওয়া এড়িয়ে চলবেন। কারণ মুলায় থাকা বিভিন্ন উপাদান ব্লাড প্রেসার কমিয়ে দিতে কাজ করে। তাই অতিরিক্ত মুলা খেলে ব্লাড প্রেসার কমে যেতে পারে এবং দেখা দিতে পারে হাইপোটেনশন। তাই এদিকটাতে খেয়াল রাখা জরুরি।

Next Post Previous Post